ফেব্রুয়ারি ১, ২০২৩ ২:৩০ অপরাহ্ণ || শতাব্দীর দৃষ্টিকোণ
অর্থনীতি শিরোনাম

নিয়ন্ত্রণে আসছে না চালের বাজার, কঠোর হচ্ছে সরকার

প্রত্যাশা ছিল বোরো ধান উঠলে চালের দাম কমবে। সাধারণ মানুষের অস্বস্তিও দূর হবে। বাস্তবে তেমনটি হয়নি। বোরোর ভরা মৌসুমেও চালের দামে প্রভাব পড়েনি। এখনও প্রতি কেজি মোটা চাল কিনতে আগের মতোই ৫০ টাকা গুনতে হচ্ছে ক্রেতাকে।

এ পরিস্থিতিতে ধান ও চাল নিয়ে অসাধু ব্যবসায়ীদের তৎপরতা রোধে কঠোর হচ্ছে সরকার। এ সংক্রান্ত বিধিবিধানের কঠোর বাস্তবায়ন চায় খাদ্য মন্ত্রণালয়। অভিযান পরিচালনা করা দফতরগুলোকে খাদ্যশস্যের বাজারমূল্য স্থিতিশীল রাখতে করণীয় বিষয়ে নির্দেশনা দিয়েছে মন্ত্রণালয়।

 ‘কৃষককে মারার উদ্দেশ্য আমাদের নেই। আমরা আর ওই পর্যায়ে যাব না, তাই চালের দামও আর ওই পর্যায়ে যাবে না।’ 

মজুত সংক্রান্ত বিধিবিধানের কঠোর বাস্তবায়ন, অভিযান পরিচালনা ও বাজার তদারকি কার্যক্রম জোরদারের জন্য খাদ্য অধিদফতর ও জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরের মহাপরিচালক এবং সব বিভাগীয় কমিশনার ও জেলা প্রশাসকদের কাছে চিঠি দিয়েছে খাদ্য মন্ত্রণালয়।

সম্প্রতি পাঠানো এ নির্দেশনার চিঠির অনুলিপি দেয়া হয়েছে মন্ত্রিপরিষদ সচিব, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সচিবকে।

সরকারি প্রতিষ্ঠান ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশ (টিসিবি) রাজধানীর বিভিন্ন বাজারের তথ্য নিয়ে শুক্রবার (২৮ মে) প্রতিবেদনে জানিয়েছে, গত এক সপ্তাহে চিকন (সরু), মাঝারি ও মোটা, সব ধরনের চালের দাম বেড়েছে। এক সপ্তাহে চিকন চালের দাম ৪ দশমিক ২৭ শতাংশ বেড়ে বিক্রি হচ্ছে ৫৮ থেকে ৬৪ টাকা কেজিতে। মাঝারি মানের পাইজাম ও লতা চালের দাম ৬ শতাংশ বেড়ে বিক্রি হচ্ছে ৫০ থেকে ৫৬ ও মোটা স্বর্ণা ও চায়না ইরি চালের দাম এক সপ্তাহে ২ দশমিক ২০ শতাংশ বেড়ে বিক্রি হচ্ছে ৪৫ থেকে ৪৮ টাকা কেজিতে।

রাজধানীর বিভিন্ন বাজার থেকে পাওয়া তথ্য অনুযায়ী, খুচরা পর্যায়ে চালের দাম আরও বেশি। খাদ্য মন্ত্রণালয়ের এসআরও’র নির্দেশনার আলোকে বেসরকারি পর্যায়ে খাদ্যশস্যের মজুত সম্পর্কিত বস্তুনিষ্ঠ প্রতিবেদন নির্ধারিত ছকে প্রতি মাসের ১৫ তারিখের মধ্যে নিয়মিতভাবে খাদ্য অধিদফতর/খাদ্য মন্ত্রণালয়ে পাঠানো নিশ্চিতের অনুরোধও জানানো হয় চিঠিতে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে খাদ্য সচিব মোছাম্মৎ নাজমানারা খানুম বলেন, ‘মনিটরিংটা চলমান প্রক্রিয়া। এজন্য আমরা নিয়মিত তাগিদ দিই। সেজন্য চিঠি পাঠানো হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘চালের দাম যেভাবে বেড়েছে সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় দাম আর সেভাবে কমবে না। গত বছর কৃষি মন্ত্রণালয় বলেছিল, জুন মাস পর্যন্ত চাহিদা পূরণ করে আরও উদ্বৃত্ত থাকবে। সেই কৃষি মন্ত্রণালয় বলছে, আম্ফান ও উপর্যুপরি বন্যায় আমাদের যে ক্ষতি হয়েছে, সেটা পূরণ হয়নি। তবে এবার উৎপাদন বাড়বে।’

সচিব বলেন, ‘২০১৮ ও ২০১৯ সালে চালের অস্বাভাবিক দরপতন হয়েছিল। সেটা হয়েছিল ভারত থেকে ৫০ থেকে ৭০ লাখ টন চাল আমদানির কারণে। আমরা এবার ভারত থেকে ১৫ লাখ টন চাল আনতে চেয়ে এনেছি সাড়ে ৭ লাখ টন। যদি আবার ৭০ লাখ টন আনতে পারতাম তবে আগের দামে যেতে পারতাম। সেটা আমরা করিনি, কারণ কৃষককে মারার উদ্দেশ্য আমাদের নেই। আমরা আর ওই পর্যায়ে যাব না, তাই চালের দামও আর ওই পর্যায়ে যাবে না।’

‘বিধিবিধানগুলো আমরা কিছুদিন পর পরই ডিসিদের মনে করিয়ে দিই, কারণ তাদের হাজার কাজের মধ্যে এটা একটা কাজ। অভিযানপরিচালনা করেন ডিসিরা এবং ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতর। আমাদের (খাদ্য বিভাগের) লোকেরা মনিটরিং করে, তাদের তো ম্যাজিস্ট্রেসি পাওয়ার নেই।’

Similar Posts

error: Content is protected !!