ফেব্রুয়ারি ৮, ২০২৩ ১১:২০ অপরাহ্ণ || শতাব্দীর দৃষ্টিকোণ
আন্তর্জাতিক শিরোনাম

বদলে গেল অস্ট্রেলিয়ার জাতীয় সঙ্গীত

নতুন বছরে বড় সিদ্ধান্ত নিয়ে নিল অস্ট্রেলিয়া। বছরের শুরুর দিনই নতুন ধরনের জাতীয় সংগীত গাইলো দেশটির জনগণ। জাতীয় ঐক্যের বার্তা দিতে এই পরিবর্তনের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন নেওয়া হয়েছে বলে ঘোষণা করেছেন অস্ট্রেলীয় প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন।

অস্ট্রেলিয়ার জাতীয় সঙ্গীত অ্যাডভান্স অস্ট্রেলিয়া ফেয়ার। এর দ্বিতীয় লাইনে ছিল ফর উই আর ইয়াং অ্যান্ড ফ্রি। তা পাল্টে দিয়ে করা হয়েছে ফর উই আর ওয়ান অ্যান্ড ফ্রি। প্রধানমন্ত্রী মরিসন দাবি করেছেন, এর ফলে ঐক্যের বার্তা তুলে ধরা হবে। এক বিবৃতিতে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, গত বছর ধরে আমরা আরও একবার অস্ট্রেলীয়দের অপরাজিত শক্তির দেখা পেলাম, তাদের সম্মিলিত প্রচেষ্টা বরাবর আমাদের একটি জাতি হিসেবে তুলে ধরেছে। এবার দেখার সময় এসেছে, যাতে এই অসামান্য ঐক্য আরও পূর্ণভাবে আমাদের জাতীয় সঙ্গীতে প্রতিফলিত হয়।

এই জাতীয় সঙ্গীতের পরিবর্তনের প্রস্তাব আনে কমনওয়েলথ। অস্ট্রেলীয় গভর্নর জেনারেল ডেভিড হার্লে সেই প্রস্তাবে সম্মতি দেন, ঠিক হয়, ১৯৮৪-র পর এই প্রথম জাতীয় সঙ্গীতে সংশোধনী আনা হবে। এরপর আজকে প্রধানমন্ত্রী মরিসনের এই ঘোষণা।

অ্যাডভান্স অস্ট্রেলিয়া ফেয়ার গানটি লিখেছেন পিটার ডডস ম্যাককরমিক এবং প্রথমবার এটি গাওয়া হয় ১৮৭৮ সালে। ১৯৪৩ সালে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী বব হকের আনা প্রস্তাবে সম্মতি দিয়ে এটিকে অস্ট্রেলিয়ার জাতীয় সঙ্গীত হিসেবে গ্রহণ করা হয়।

বিবিসি জানিয়েছে, বেশ কিছু পরিবর্তন আনা হয়েছে দেশটির জাতীয় সংগীতে। অতীত তুলে ধরা হয়েছে এখন। যুক্ত করা হয়েছে আদিবাসীদের দীর্ঘ ইতিহাস। এখন থেকে অস্ট্রেলিয়াকে আর ‘নবীন এবং মুক্ত’ উল্লেখ করা হবে না। বরং থাকবে অস্ট্রেলিয়া ‘এক এবং মুক্ত’।

প্রসঙ্গত ১৮ শতকে শ্বেতাঙ্গ ইংরেজদের উপনিবেশ গড়ে ওঠার কয়েক হাজার বছর আগে থেকেই অস্ট্রেলিয়াতে জনগণের বসবাস ছিল। ব্রিটিশ সেটেলাররা অস্ট্রেলিয়ায় কলোনি গড়ার আগে এটি ছিল লাখ লাখ আদিবাসীর ভূখণ্ড। অথচ এতদিন ধরে দেশটির জাতীয় সংগীতে আদিবাসীর কথা ও ইতিহাস উপেক্ষিত ছিল।

Similar Posts

error: Content is protected !!