জানুয়ারি ২৮, ২০২৩ ৮:১৭ অপরাহ্ণ || শতাব্দীর দৃষ্টিকোণ
রাজনীতি শিরোনাম

কারাগারে লেখক মুসতাকের মৃত্যু, মধ্যরাতে বিক্ষোভ

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে গ্রেপ্তার হয়ে কাশিমপুর কারাগারে লেখক মুসতাক আহমেদের মৃত্যুর প্রতিবাদ জানিয়ে বিক্ষোভ করেছে বামপন্থী ছাত্র সংগঠনের নেতারা। বৃহস্পতিবার কাশিমপুর কারাগারে মারা যান মুসতাক আহমেদ। এ খবরের পরেই রাত সাড়ে ১২টার দিকে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করে তাৎক্ষণিক প্রতিবাদ জানায় তারা। মিছিল শেষে শুক্রবার থেকে ছাত্রজনতার ব্যানারে টানা অবস্থান কর্মসূচি ঘোষণা করেন তারা৷

ছাত্র শিক্ষক কেন্দ্র (টিএসসি) থেকে সাড়ে বারটার দিকে বিক্ষোভ মিছিলটি শুরু হয়৷ পরে এটি বিভিন্ন স্লোগান দিতে দিতে শাহবাগ যায়৷ শাহবাগ মোড় অতিক্রম করে হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালের সামনের মোড় ঘুরে আবার শাহবাগ হয়ে টিএসসির রাজু ভাস্কর্যে সামনে এসে সংক্ষিপ্ত সমাবেশের মাধ্যমে শেষ হয়।

বিক্ষোভ মিছিলে উপস্থিত ছিলেন ছাত্র ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক দীপক শীল, সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্টের কেন্দ্রীয় সভাপতি ও প্রগতিশীল ছাত্র জোটের সমন্বয়ক আল কাদেরী জয়, বিপ্লবীর ছাত্র মৈত্রীর সভাপতি ইকবাল কবির, ছাত্রফ্রন্টের (বাসদ মার্ক্সবাদী) সভাপতি মাসুদ রানা, গণতান্ত্রিক ছাত্র কাউন্সিলের সভাপতি আরিফ মঈন উদ্দীন, ছাত্র ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় নেতা সৈকত আরিফ, ছাত্র ইউনিয়নের সাবেক সাধারণ সম্পাদক লিটন নন্দী প্রমুখ।

প্রসঙ্গত, মৃত মোস্তাক আহমেদ নারায়নগঞ্জের আড়াইহাজার থানার ছোট বালাপুর এলাকার আব্দুর রাজ্জাকের ছেলে। পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, আগামীকাল শুক্রবার সকালে মুস্তাক আহমেদের মৃতদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে।

গত ১১ জানুয়ারি ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় কার্টুনিস্ট আহমেদ কবির কিশোর, লেখক মুসতাক আহমেদ ও রাষ্ট্রচিন্তার কর্মী দিদারুল ভূঁইয়ার বিরুদ্ধে চার্জশিট দেয় পুলিশ।

২০২০ সালের মে মাসে রমনা থানায় মুসতাকসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে তিনটি মামলা করে র‌্যাব। তাদের বিরুদ্ধে পরস্পর যোগসাজশে দীর্ঘদিন ধরে বিভিন্ন ফেসবুক অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করে জাতির পিতা, বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধ, মহামারি করোনাভাইরাস সম্পর্কে গুজব, রাষ্ট্র ও সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ করতে অপপ্রচার ও বিভ্রান্তি ছড়ানোর অভিযোগ আনা হয়।

মামলার এজাহারে বলা হয়, তারা রাষ্ট্রের জনগণের মধ্যে বিভ্রান্তি, অস্থিরতা ও বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির অপরাধ করেছেন। গত সেপ্টেম্বরে এই মামলায় গ্রেপ্তার মিনহাজ মান্নান ও দিদারুল ভূঁইয়া জামিনে মুক্তি পান। তবে কার্টুনিস্ট কিশোর ও লেখক মুসতাকের জামিন হয়নি। ছয়বার মুসতাকের জামিন আবেদন নাকচ করেছেন আদালত।

Similar Posts

error: Content is protected !!